অনার ব্র্যান্ড বিক্রির কারণ ব্যাখ্যা করেছেন রেন ঝেংফেই

 

অনেক আগে থেকেই গুঞ্জন ছিল যে, চাইনিজ টেক জায়ান্ট হুয়াওয়ে বিক্রি করতে চলেছে তাদের সাব-ব্র‍্যান্ড অনারকে। যেমন কথা তেমন কাজ। গত ১৭ই নভেম্বর অনুষ্ঠানিক ঘোষণা আছে বিক্রি হয়ে গিয়েছে অনার। বিলিয়ন ডলারে অনারের মালিকানা কিনে নিয়েছিল ‘শেনজেন জিশিন ইনফরমেশন টেকনোলজিস’ নামের এক চীনা এক কোম্পানি। যদিও অনারের বিক্রি নিয়ে ফ্যানদের কাছে তোপের মুখেও পড়তে হয়েছিল হুয়াওয়েকে।

অবশেষে সম্প্রতি এ বিষয়ে মুখ খুলেছেন কোম্পানিটির প্রতিষ্ঠাতা ‘রেন ঝেংফেই’। অনার ব্র্যান্ড বিক্রির কারণ হিসেবে ‘রেন ঝেংফেই’ বলেন, স্মার্টফোন উৎপাদনে প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম সরবরাহের অভাব এবং একযোগে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা সহ বিভিন্ন চাপের শিকার হয়ে অনার ব্র্যান্ডের সাপ্লাই চেইন ও কর্মীদের সহ মালিকানা বিক্রি করেছে হুয়াওয়ে।” এক ফোরামে তিনি আরও জানিয়েছেন, “এক প্রকার বাধ্য হয়েই অনারকে বিক্রি করেছি আমরা, আমরা চেয়েছি যাতে ভবিষ্যতে অনার ব্র্যান্ডের অস্তিত্ব সংকটে না পরে।”

এছাড়া ‘রেন ঝেংফেই’ একই সাথে এও নিশ্চিত করেছেন যে, অনার ব্র‍্যান্ডের মালিকানা পরিবর্তন হলেও এর সাথে সংশ্লিষ্ট কর্মচারীদের উপর কোনো প্রভাব পরবে না। তার মতে, “হুয়াওয়ের উপর এই নিষেধাজ্ঞার জন্য মার্কিন রাজনৈতিক ব্যক্তিরাই দায়ী। তারা হুয়াওয়েকে সংশোধন না করে সমূলে নিধন করতে উদ্দেশ্যমূলকভাবে বেশি আগ্রহী।” অর্থাৎ স্পষ্টভাবেই বোঝা যায় যে, মার্কিন অবরোধ এর কবল থেকে অনারকে প্রভাবমুক্ত রাখতে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে হুয়াওয়ে।

অন্যদিকে একই সাথে অনার ব্র‍্যান্ডের জন্য শুভকামনা জানিয়ে ‘রেন ঝেংফেই’ বলেন, হুয়াওয়ে থেকে আলাদা ও সম্পূর্ণ স্বাধীন হলেও অনর যেন হুয়াওয়েকে ছাড়িয়ে যেতে পারে। অনার যাতে তাদের সবথেকে বড় প্রতিদ্বন্দ্বী হয়ে বাজারে ফিরে আসতে পারে। হুয়াওয়েকে টেক্কা দিয়ে যেতে সামনে এগিয়ে পারে অনার, তাই কর্মীদের সেদিকে দৃষ্টি দেয়ার পরামর্শন দেন হুয়াওয়ে বস। অপর দিকে হিসেবে বলছে, চলতি বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে হুয়াওয়ের মোট স্মার্টফোন বিক্রিত ২৬ শতাংশই ছিল অনার ডিভাইজ।

বন্ধুদের সাথে পোস্টটি শেয়ার করতে ভুলবেন না। আমরা অনুপ্রাণিত হব 🙂




যেকোনো সমস্যা হলে গ্ৰুপে পোস্ট করলে অথবা পেজে মেসেজ দিলে সমাধান পেয়ে যাবেন 🔥🌺♥️🍀🌷
আমার সাথে যোগাযোগ করার জন্য,

Comment

Previous Post Next Post