লেজার ইনফ্রারেড ওয়্যারলেস চার্জিং টেকনোলজি নিয়ে কাজ করছে দক্ষিণ কোরিয়া

 

কিছুদিন আগেই সামনে এসেছিলো চাইনিজ টেক জায়ান্ট হুয়াওয়ের লেজার বেজড ওয়্যারলেস চার্জিং টেকনোলজি। তবে এবার হুয়াওয়েকে পাল্লা দিয়ে এমনি আরেকটি উদ্ভাবনী উপায় খুঁজে পেয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া। সম্প্রতি লেজার ইনফ্রারেড বেজড একটি ওয়্যারলেস চার্জিং প্রযুক্তির উদ্ভাবন করেছেন দক্ষিণ কোরিয়ার শেজং বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ‘হা জেন  ইয়ং’। কোরিয়ান মিডিয়া সিনো টেকনোলজি থেকে জানা যায়, ইতোমধ্যে এ এ ধরণের একটি টেকনোলজির পেটেন্টের আবেদন করেছেন প্রফেসর ‘হা জেন  ইয়ং’।

ওয়্যারলেস চার্জিং

রিপোর্ট অনুযায়ী, ইনফ্রারেড লেজার বেজড এই ওয়্যারলেস চার্জারটি কয়েক মিটার দূরে থেকে শত ভাগ তারবিহীন ভাবে যে কোনো ডিভাইজ চার্জিং করতে সক্ষম হবে। এই প্রযুক্তির কল্যানে ইউজাররা বিভিন্ন মিটারের ব্যান্ডউইথের ইনফ্রারেড সিলেক্ট করে একই সাথে একাধিক ডিভাইসে চার্জ করতে পারবেন। মূলত অপটিক্যাল এমপ্লিফায়ারের দ্বারা উৎপন্নকৃত উচ্চ তরঙ্গের ইনফ্রারেড ব্যবহার করে লেজার মডিউলের সাহায্যে অদৃশ্য ও সম্পূর্ন তারবিহীন ভাবে কাজ এই এই প্রযুক্তিটি।

 

যেমনটা বলা হয়েছে এই তরঙ্গের মাধ্যমে একসাথে মাল্টিপল ডিভাইস চার্জ করা যাবে, কারণ প্রতিটি ডিভাইস একটি তরঙ্গ ব্যবহার করে চার্জ গ্রহন করতে পারবে। এছাড়াও এটি যে শুধু শক্তি ক্ষয় রোধ করবে তাই নয়, বরং সঠিকভাবে শক্তির ব্যবহারকেও নিশ্চিত করবে। প্রফেসর ‘হা জিন ইয়ং’ বলেছেন, ‘এটি একটি বৈপ্লবিক আবিষ্কার হতে চলেছে, যার মাধ্যমে বিশ্বের সামনে একটি নতুন দরজা খুলে গেছে, যেখানে একটি দেশের অন্তর্বতী প্রযুক্তি হুয়াওয়ের লেজার ভিত্তিক প্রযুক্তির বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে দাঁড়াতে পারছে।

বিশ্লেষকদের মতে, এ ধরণের ওয়্যারলেস চার্জিং প্রযুক্তি সাধারণ জনসাধারণের আওতায় আনার জন্য কাজ করা উচিত কোম্পানিগুলোর। কারন সবার পক্ষে এত টাকা খরচ করে ওয়্যারলেস চার্জিংয়ের জন্য হাই এন্ড স্মার্টফোন কেনা সম্ভব নয়। অন্যদিকে বর্তমানে বাজারে উপলব্ধ যে ওয়্যারলেস চার্জিং প্রযুক্তি রয়েছে তা যথেষ্ট এক্সপেন্সিভ। তাছাড়া ইলেকট্রোম্যাগনেটিক ইন্ডাকশন বেজড হওয়ায় এতে রয়েছে বিভিন্ন সীমাবদ্ধতা।

বন্ধুদের সাথে নিউজটি শেয়ার করতে ভুলবেন না। আমরা অনুপ্রাণিত হব 🙂




যেকোনো সমস্যা হলে গ্ৰুপে পোস্ট করলে অথবা পেজে মেসেজ দিলে সমাধান পেয়ে যাবেন 🔥🌺♥️🍀🌷
আমার সাথে যোগাযোগ করার জন্য,

Comment

Previous Post Next Post