২৫ বছর বয়সি রোগীর জীবন বাঁচিয়ে Apple Watch

Bkash Bkash Bkash

মানুষের জীবন বাঁচানো কিংবা রোগীদের সাহায্য করার ঘটনা Apple Watch এর জন্য নতুন কিছু না। প্রতিনিয়তই বিভিন্ন খবর আসে যে ইউজারদের শারীরিক সুস্থ্যতায় বেশ বড় ভূমিকা পালন করে আসছে Apple Watch। এরই ধারাবিকতায় সম্প্রতি আরেকটি খবর সামনে এসেছে যেখানে বলা হচ্ছে, Friedreich’s Ataxia নামক একটি জিনগত রোগে ভুগতে থাকা ২৫ বছর বয়সি এক যুবকের জীবন বাঁচিয়েছে Apple Watch। ওহায়ো স্টেট ইউনিভার্সিটির স্নাতক ওই রোগীর নাম জাচারি জিয়েস।

জাচারি জিয়েস যে রোগে ভুগছিলেন সে রোগ দেহের মেরুদন্ড, মস্তিষ্ক ও হার্ট-সহ বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গকে প্রভাবিত করে। এদিকে Apple Watch-এ হার্ট রেট মনিটর ফিচারের কল্যানে ডিভাইজটি দিয়ে নিজের দেহে খুব বেশি পরিমাণ হৃৎস্পন্দন লক্ষ্য করেন জিয়ে। সাধারণত একজন সুপ্রশিক্ষিত অ্যাথলেটের ক্ষেত্রেও হার্ট রেট প্রতি মিনিটে ৪০-এর বেশি যায় না। কিন্তু সেসময় জিয়েসের হার্ট রেট আচমকা ২১০-এ পৌঁছে গিয়েছিল। Apple Watch-এ এই অস্বাভাবিক হার্ট রেট দেখে বিপদ আঁচ করে সে।

Bkash Bkash Bkash

অস্বাভাবিক হার্ট রেট দেখে জিয়েস ডাক্তারের কাছে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। ডাক্তার তাকে আর্টেরিয়াল অ্যাব্লেশন নামে একটি পদ্ধতির মধ্য দিয়ে নিয়ে যায়। উল্লেখ্য, এই প্রক্রিয়াতে সেই কোষগুলি ধ্বংস করা হয়, যেগুলি অস্বাভাবিক হৃৎস্পন্দন তৈরি করে। জিয়েসের ক্ষেত্রে এটি ঘটেছিল আর্টেরিয়াল ফ্লাটারের কারণে। যাই হোক, Apple Watch এর কারণে জিয়েস এখন অনেকটাই সুস্থ।

আধুনিক জীবনযাত্রায় প্রযুক্তির বরদান আমরা অনুভব করি প্রতি পদেই। বারবার খবরে উঠে আসে সেইসব ঘটনার কথা যেখানে প্রযুক্তিই যেন জীবনের পরম বন্ধু। আজকের দিনে যেখানে একটি ঘড়িও মানুষের জীবন বাঁচাতে ভূমিকা রাখতে পারে। এ নিয়ে জিয়েস বলেন, “আমার মনে হয় আমার যখন সাহায্য প্রয়োজন ছিল তখন আমার হাতের Apple Watch’টি বলছিলো তোমার শারীরিক পরিস্থিতি অস্বাভিক হয়ে পড়ছে দ্রুত কিছু করো।” আমায় দ্বিতীয় জীবন দেয়ায় সকল কৃতিত্ব এই ঘড়িটির। শুধু জিয়েস’ই নয়, এর আগেও গত বছর নরওয়ের ৬৭ বছর বয়সী এক বৃদ্ধের জীবনও বাঁচিয়ে দিয়েছিল Apple Watch।

বন্ধুদের সাথে পোস্টটি শেয়ার করতে ভুলবেন না। আমরা অনুপ্রাণিত হব 🙂

Bkash Bkash Bkash

ক্রেডিট 




যেকোনো সমস্যা হলে গ্ৰুপে পোস্ট করলে অথবা পেজে মেসেজ দিলে সমাধান পেয়ে যাবেন 🔥🌺♥️🍀🌷
আমার সাথে যোগাযোগ করার জন্য,

Comment

Previous Post Next Post