স্যামসাংয়ের পরবর্তী ফোনগুলোতেও থাকবে না চার্জার

মাস খানেক আগে থেকেই রিউমার ওরা উড়ির পর অবশেষে স্যামসাং সত্যিই তাদের লেটেস্ট ফ্ল্যাগশিপ Galaxy S21 সিরিজ থেকে চার্জার সরিয়ে নিয়েছে। অ্যাপল ও শাওমির পর স্যামসাং এর এই বিতর্কিত সিদ্ধান্তে অনেক স্যামসাং ফ্যানই হতাশ হয়েছেন। তবে দুঃখজনকভাবে স্যামসাং ফ্যানদের জন্য আরও দুঃসংবাদ বাকী রয়েছে। স্যামসাং কর্মকর্তাদের একটি অফিশিয়াল প্রশ্নোত্তর পর্বে স্যামসাং এর পক্ষ থেকে জানানো হয়, তারা ভবিষ্যতে অন্যান্য স্মার্টফোন থেকেও চার্জার ধীরে ধীরে সরিয়ে ফেলার চিন্তা করছে।

ফোনের রিটেইল বাক্স থেকে চার্জার সরিয়ে নেওয়ার ব্যাখ্যায় অ্যাপলের মতো স্যামসাংও একই যুক্তি দেখিয়েছে। তাদের মতে, “আমাদের প্রায় সকলেরই অতিরিক্ত দুয়েকটা চার্জার থেকে থাকে, তাই বক্স থেকে চার্জার সরিয়ে ফেলার সিদ্ধান্ত ইউজারদের দৈনন্দিন জীবনে তেমন প্রভাব ফেলবে না। স্যামসাংয়ের ভাইস প্রেসিডেন্ট প্যাট্রিক কোমেট বলেছেন, “গ্যালাক্সি পরিবারের প্রতি সাপোর্ট আরও বাড়াতে স্যামসাং তাদের ভবিষ্যত গ্যালাক্সি স্মার্টফোন থেকে চার্জার এবং ইয়ারফোন সরিয়ে ফেলবে “।

এদিকে অ্যাপলকে অনুসরণ করতে গিয়ে তাদের থেকে বাজেও পরিস্থিতিতে পড়ার সম্ভাবনা বেশি স্যামসাংয়ের। কেননা, অ্যাপল যেখানে প্রতিবছর হাতেগোনা কিছু মডেল বের করে, স্যামসাং সেখানে এন্ট্রি লেভেল থেকে ফ্ল্যাগশিপ পর্যন্ত সকল পরিসরেই অসংখ মডেলের স্মার্টফোন বাজারে আনে। উল্লেখ্য, যদি কেউ ২০২০ সালের স্মার্টফোন কিনতে চায় তবে সে আগের মতই বক্সে থাকা সকল অ্যাকসেসরিজ সাথেই পেয়ে যাবেন। তাই এই মুহূর্তে যদি কেউ অ্যাকসেসরিজ সহ স্মার্টফোন কিনতে চায় তবে পুরনো মডেল কেনাই তার জন্য ভালো হবে।

ইতোপূর্বে অ্যাপল-শাওমি, কিংবা সম্প্রতি শুধুমাত্র স্যামসাং-ই নয়, আগামী অন্যান্য স্মার্টফোন মেনুফেকচারিং ব্র্যান্ডগুলোও একই পথে পা বাড়াতে যাচ্ছে। অর্থাৎ চলতি বছরের মধ্যেই বিশ্বের শীর্ষ স্থানীয় মোবাইল ব্র্যান্ডগুলোও তাদের ফোনের রিটেইল বাক্স থেকে চার্জিং অ্যাডাপ্টার সরিয়ে নেওয়ার  করছে। আর এই সিদ্ধান্তের মূল কারণ হিসেবে বরাবরের মতোই বিশ্বজুড়ে উর্ধমান ই-বর্জ্য কে দায়ী করছে স্মার্টফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলো।




যেকোনো সমস্যা হলে গ্ৰুপে পোস্ট করলে অথবা পেজে মেসেজ দিলে সমাধান পেয়ে যাবেন 🔥🌺♥️🍀🌷
আমার সাথে যোগাযোগ করার জন্য,

Comment

Previous Post Next Post